Things you didn’t know about Alia Bhatt

Alia Bhatt

If you ask a young man who his favorite Bollywood actress is, he’ll probably mention Alia Bhatt. This talented young lady has placed her name among the A listers of the film industry. She has proved her capability in films like 2 States, Kapoor & Sons, Badri ki Dulhania, Udta Punjab and Highway. She is one of those actresses who’re not only cute but can sing pretty well also.

Although she is now one of the loveliest heroines of Bollywood, but it wasn’t always the same for her. That being said, here are a few things you probably didn’t know about Alia Bhatt.

The nickname of Alia Bhatt

Well, she’s called ‘Alu’ by her family members.

Her first ever film

Many of you could be thinking that ‘Student of the year’ was Bhatt’s debuting Bollywood film. Well, you would be wrong in that case. Because her first ever film was ‘Shangharsho’ which was released in 1999. She played the role of a child in that.

Her audition for ‘Student of the year’

Do you know how many girls she had to compete with to get to lead female role in ‘Student of the year’? Well, it was 700 girls. And she didn’t want to get introduced through one of his dad’s films as well. She wanted to shine on her own.

Her weight during this audition

Alia was really heavy just prior to her audition for her first Bollywood film as a lead female role. She weighed 67 kilos at that time. Later she lost almost 16 kilos in next three months.

She likes Yogurt

You may not know, but Alia Bhatt likes Yogurt very much. She even takes Yogurt with Italian and Mexican food.

She is an atheist

Mahesh Bhatt being an atheist himself has raised all his children to grow as atheists. And Alia is no exception to that.

Alia Bhatt is a good painter

Bhatt is a good actor and singer. She is also very good at painting, specially charcoal painting.

She likes boys’ perfume

You may be surprised to know that Alia actually likes boys’ perfume. And she has used those in numerous occasions.

Alia is an introvert

In cinemas Alia seems to be very jolly minded and bubbly. But in real life, she is actually an introvert.

A few facts about Kajol you didn’t know

Her favorite Bollywood actors

She previously liked Shah Rukh Khan. Later she liked Shaheed Kapoor. But now a days her favorite actor is Ranbir Kapoor.

She was part of PETA campaign

Alia Bhatt was part of PETA campaign which was run to save endangered animals.

What Alia can’t do

According to an interview, she can’t cook.

The kind of person she wants to marry

Alia wants to marry a man who is more like her father, Mr. Mahesh Bhatt. Also that guy must be able to keep her happy and pleased all the time.

What Alia Bhatt wishes to do

She actually wants to go shopping and roam around in the mall like a normal person.

Visit and subscribe to our YouTube channel:

https://www.youtube.com/channel/UC_ea40zKSAhep0MI23VQx0g

A few facts about Kajol you didn’t know

Kajol

Kajol is probably the most popular Bollywood actress in romantic and family based character. She and Shah Rukh Khan made a unique pair for almost a decade and ruled the film industry. She is still as much popular today as she was at the end of 1994, the year her first blockbuster Dilwale Dulhania le Jayenge was released. Now here are a few interesting facts you may not have known about her.

Her last name

You most possibly know the last names of all Bollywood actresses except Kajol. May be you know that Rani has the last name Mukherjee, Shilpa has the last name Shetty and Preity has hers as Zinta. But did you really know Kajol’s last name up until now? I guess not. Well, it is none other than Mukherjee and she’s a first cousin of Rani Mukherjee as well. She’s also from a Bengali-Marathi mixed family.

Her family background

Her father Shomu Mukherjee was a film director and producer while her mother Tanuja Samarth was an actress. Her younger sister Tanishaa Mukherjee was an actress for a brief period of time. Kajol was born in Mumbai.

Interesting facts you didn’t know about Aamir Khan




Her marriage with Ajay Devgan almost wrecked at some point

It was a scene from a certain Bollywood film that pissed off Ajay Devgan. Kajol had an intimate romance scene with her male co-actor in that. This situation almost ended up on court at some point when their close relatives pacified both of the couple. Then they came up to make a few stipulations on their relation: the dos and don’ts of their film career. Since then both have been strictly maintaining those conditions and happy as well. They now have reached a stable point in their personal and family lives. Well, her fans expect that her marriage with Devgan will last really long.

kajol had a melanin operation

Previously Kajol’s body complexion was not bright although she always was naturally cute. Because of this some even commented that Kajol didn’t deserve to be an actress on Bollywood in the first place considering her body tone. Well, these things finally pissed her off and she went through a melanin operation. Now a days she looks quite bright and attractive, just has gained a few extra pounds lately.

Her husband isn’t in good terms with her favorite co-actor

Undoubtedly Kajol’s favorite Bollywood actor is Shah Rukh Khan, she herself confessed this little secret of hers. Well, interestingly enough, her husband Ajay Devgan isn’t exactly in good terms with Shah Rukh. Yet Khan and Kajol are best of friends and are likely to remain so for the rest of their days.

Facebook tricks: Learn a few here

Things You Didn’t Know About Shah Rukh Khan

Shah Rukh Khan

Shah Rukh Khan is surely the number one actor and one of the biggest producers in Bollywood. He is called ‘The King Khan’ of Bollywood by many people. He has brought immense success in most of his films and acted with almost all popular actresses. His domination over Bollywood film industry is not going to be over any time soon. With that said here we present a few interesting things you may not have known about Shah Rukh Khan.




He was not a hero in his first few films

Shah Rukh Khan is considered the most romantic hero of all time in Bollywood. But did you know that he didn’t play the role of a hero in his first few films namely Darr, Bazigar and Anjaam? He actually was a villain in those films.

The most successful film of Shah Rukh Khan to this day

You may be wondering as to which has been the most successful film of Shah Rukh Khan in his film career. It was none but the famous film Dilwale Dulhania Le Jayenge starring Kajol and Shah Rukh Khan. It has not only earned the biggest amount of revenues in his film career, but has been running also in many cinema halls to this day, 23 years after the film was released.

He is not the sole owner of Red Chillies Entertainment and KKR

Everyone knows the name of his productions company ‘Red Chillies Entertainment’. But did you know that he is actually a co-chairman of the company? Which means he’s not the sole owner of the company. The same is applicable for his IPL franchise Kolkata Knight Riders. He’s a co-owner of this team too.

His third child AbRam was a surrogate child

Shah Rukh’s third child AbRam has been enjoying stardom right from his birth. But did you know that he was actually a surrogate child? That means he was not raised in Shah Rukh’s wife Gouri’s womb, although Gouri is AbRam’s biological mother. Nobody knows to this day who this surrogate lady was.

Shah Rukh’s all time personal favorite actress is Kajol

You must have seen Shah Rukh Khan to act with so many female costars starting from Divya Bharoti to Alia Bhatt. Now speaking of female costars aka heroines, you may be wondering who’s Shah Rukh’s all time favorite. It’s none other than Kajol. This pair has so many successful films in their career together. To name a few, Dilwale Dulhania Le Jayenge, Kuch Kuch Hota Hain, Kavi Khushi Kavi Gham, My name is Khan.

His special relationship with Karan Johar

If you ask Shah Rukh Khan ‘Who is your favorite director?’ he will be mentioning Karan Johar’s name. Now this guy Karan Johar is not only his favorite director, but a very close friend also. They have been each other’s counselor and associate in the time of need for a long time now. From the looks of it, this relationship is not going to end any time soon.

Shah rukh khan as television host and stage performer

Some people might be thinking Shah Rukh Khan is good at only acting in films. But did you know that he is actually a very good television host and an enthusiastic stage performer as well? He has hosted a couple of Film Fare awards and other similar functions. He is a very active stage performer both in India and outside.

Aamir Khan seems to avoid Shah Rukh Khan as much as possible

Previously it was a rumor, but recently it is almost an open secret that Bollywood actor Aamir Khan avoids Shah Rukh Khan as much as possible. The fact is that Aamir hardly attends any award function. But one thing is for sure, he would not possibly attend an award ceremony which is to be hosted by Shah Rukh Khan. Now many people have been wondering as to why’s that. It is thought that Aamir Khan is in a cold fight with Shah Rukh for the number one position as an actor in Bollywood. Seems like this fight is not going to end soon.

He brought Deepika Padukone and Anushka Sharma into Bollywood

Now it’s no wonder that Deepika Padukone and Anushka Sharma are two of the biggest superstars in Bollywood now a days. Well, did you know who brought them into this colorful world of film industry? It’s none other than Shah Rukh Khan. Deepika debuted in Shah Rukh’s 2007 blockbuster Om Shanti Om and Anushka debuted in Khan’s 2008 film Rab Ne Bana De Jodi. Both actresses have been very successful since the inception of their acting career. It’s all supposedly the blessings from SRK!

Shah Rukh Khan imitated Jackie Chan on a couple of occasions?

Many people alleged that Shah Rukh actually imitated Jackie Chan’s postures and body languages on a couple of occasions, in a few TV appearances and advertisements. Now this act of SRK has surely disappointed many of his fans. Actually they didn’t expect this level of mimicry from a renowned actor that Shah Rukh Khan is. May be, Shah Rukh himself is a big fan of Jackie Chan. Then again, may be he wanted to point out that while Hollywood has Jackie Chan Bollywood has Shah Rukh Khan! What do you know?

J.P. Morgan: a questionable name in humanity

This person has been questionable/controversial in history because of the following two reasons:

1. His withdrawal of support from Warden-Cliff project: We all know that Nicola Tesla was a tremendously talented scientist and engineer. He wanted to provide ‘free electricity’ for all the people across the world. He planned to send this electricity through the ionosphere. He built the Warden-Cliff tower to serve this very purpose. The investor/financier on this project was J.P. Morgan. His purpose behind this investment was purely business-based. He basically wanted the practical infrastructure for radio-signal transmission to be built. But Tesla’s dreams were a little bit different. He wanted to build a system which would be able to send not only radio signal, but ‘electricity’ as well. Had this project been fully realized, it would have been possible to provide all the people of the globe with ‘free electricity’. But the moment Morgan realized that his chance of financial gain from this particular project was very thin, he stopped backing up the project. If Tesla’s project had been finally completed, we would not have to see any ‘wire’ at all; all the instruments, appliances and machines would have been wireless now-a-days. But this was never done and completed because of Morgan’s selfishness and self-centered mind.




2. His alleged involvement in the capsize of ‘Titanic’: The big reason behind J.P. Morgan’s name being infamous/controversial is the allegation that he was involved with the capsize of the famous ship Titanic and thus led to a killing of almost 1500 people. According to a popular conspiracy theory, Titanic didn’t sink by itself, it was made to sink. To be even more precise, may be Titanic never sank; the ship that sank was another one named ‘Olympic’ from the same shipping company. Actually the ship ‘Olympic’ was previously severely damaged being victim to a collision with another small ship while in sea, that’s when Morgan concocted this ‘wonderful’ idea. He started building a new ship with the name ‘Titanic’. It was built in such a fashion that it would never sink in any circumstances whatsoever. But this ship would capsize in its very first voyage –  this is totally unbelievable. Because there is only one ship in history that collided with an iceberg and consequently sank, it’s the famous ‘Titanic’. Conspiracy theorists believe that it was the repaired ship ‘Olympic’ that was launched in the waters in the name of ‘Titanic’ and later it was intentionally made to sink. May be the captain and the crew of the ship were all involved in the conspiracy.

However, Morgan received a huge sum of money from the insurance organization because of this incident, which saved him and his shipping company from being bankrupt. Had there been no casualties in this incident, then may be no one would have anything to say about this. But we must not forget that almost fifteen hundred people died in that tragedy. Needless to say, it was a grave crime to put all these people to death knowingly which Morgan might have done. It is guessed that Morgan had this ‘brilliant’ idea by reading the 1898 novel ‘Wreck of the titan’. The novel’s story-line fully matched ‘Titanic tragedy’, i.e. the name of ship (in the novel) was ‘Titan’, it was made to be unsinkable in any circumstances, but it capsized in its maiden voyage, same as ‘Titanic’.



Come to know who Pharaoh was

All the followers of Islam (and may be all Jews as well) hate Pharaoh simply by his name. Interestingly enough, the word ‘Pharaoh’ is not the name of a single person, rather it is the name of an ancient Egyptian race. For a long time (few hundred years) the emperor of Egypt was called ‘Pharaoh’. All these emperors came into power traditionally through their respective ‘father’s and they all claimed to be ‘God himself’, as a result of that the then Egyptians were simply forced to accept the emperor as ‘God’. By the way, the person who is known as ‘Pharaoh’ to the Muslims had his real name ‘Remesis’. He was Moses’ (A:) half-brother before they ever became enemies to each other. To be even more precise, Moses was Remesis’ adopted brother, because Remesis’ mother (the empress  herself) found baby Moses at the shore of the river ‘Nile’ and adopted him as her own child.

Remesis and Moses were almost the same age and they were raised together. Through the study of history, it is known that Moses had been very naughty since his early childhood. Many a times he was the one to create a mischief and then impose the responsibility on his brother Remesis. This is the reason why Remesis had been ‘mad’ at Moses since his childhood. Although they were almost the same age, but Remesis was a little bit older than Moses, that’s why he was the heir to the throne after the demise of their father ‘Pharaoh’. Remesis’ father (the then emperor) was almost all the time angry with his elder son, because most of the complaints came against his name. The emperor feared that all the traditions of their royal family that had been running the last couple of centuries might come to an end just because of Remesis’ wrong doings and decisions. That means he wanted to say that Remesis might be the one to cause the destruction of their family’s emperor-hood.



The emperor all the time asked his own son to be more strict and careful, still Remesis often got involved in controversies. Harassment would never cease following him, that’s why he never took it kindly to his adopted brother Moses. At a later time when Moses became prophet after being addressed by God (Allah), Remesis was in the throne of emperor because their father had already demised. Then prophet Moses (A:) invited the emperor to the ways devised by God (Sole Creator) and also to release the slaves of Bani Israel, but Remesis simply denied his proposals and requests. Although he was sure to deny the existence of ‘sole God’ (because he claimed himself as God over all Egypt), but he might still let go of the slaves, upon being requested by his once adopted brother. But he became strict when he remembered his father’s prophecies about him ‘You’ll be the one to put an end to the great legacies of Pharaohs’. That’w when he refused to release those slaves and everyone knows what happened in Egypt afterwards. The ‘golden’ Egypt was hit by the rages of God and it almost became a desert.

But Remesis was still silent and tried to endure those ‘rages’ sent by God. That means he yet didn’t take any actions to siege or kill prophet Moses. But at a later point when his own young son died after suffering from ‘plague’, he could not take it any more. This time he firstly released the slaves of Bani Israel and later attacked them on the shores of Nile with a thousands soldiers. Now God had mercy upon these poor people of Bani Israel and Moses, he made a way across the Nile for them to pass on. They passed safely, but Remesis with his soldiers followed them on this passage. However when they were on the midway, being ordered by God the passage was flown and filled by the water of Nile again, thus they were all bound to die there and at that instant.



আব্রাহাম লিঙ্কন যে কারণে আমেরিকার সর্বশ্রেষ্ঠ প্রেসিডেন্ট

আব্রাহাম লিঙ্কন আমেরিকার প্রথম প্রেসিডেন্ট জর্জ ওয়াশিংটনের মতো ধনী ছিলেন না, তিনি বেশ কিছু প্রেসিডেন্টের মতো সুদর্শনও ছিলেন না। তারপরও তাঁকেই আমেরিকার সর্বশ্রেষ্ঠ প্রেসিডেন্ট হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এর একটি প্রধান কারণ হলো, তিনি তাঁর শাসনামলে আমেরিকাকে বিভক্তির হাত থেকে বাঁচিয়েছেন। আর একটি কারণ হলোঃ তিনি দাসপ্রথার কলঙ্ক থেকে পৃথিবীকে মুক্ত করেছেন।

প্রথমে তাঁর ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে সামান্য কিছু বলা যাক। তিনি একটি সাধারণ মানের পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। অল্পবয়সে তাঁর মা মারা যায় এবং তাঁর বাবা তাঁকে প্রায়ই প্রহার করতেন। এজন্য প্রাপ্তবয়ষ্ক হওয়ার পরপরই তিনি বাসা থেকে বেরিয়ে যান এবং পিতার সাথে আর যোগাযোগ রাখেন নি। তিনি পেশায় একজন আইন ব্যবসায়ী বা উকিল ছিলেন। দাসপ্রথার ব্যাপারটা ছোটকাল থেকেই তাঁর কাছে খটকা লাগতো। কিন্তু এ ব্যাপারে মুখ খোলার কোনো জো ছিল না, কারণ দাসপ্রথাকে আমেরিকার সকল স্তরের লোকজন স্বাভাবিক চোখেই দেখতো। কালক্রমে বিভিন্ন ঘটনার পরিক্রমায় এই সহজ-সরল সাধাসিধে ব্যক্তিটিই আমেরিকা বা ইউএসএ’র প্রেসিডেন্ট হিসেবে আবির্ভূত হলেন। তাঁর শাসন আমলে আমেরিকাতে গৃহযুদ্ধ বেঁধে যায়। দক্ষিণের কিছু স্টেট উত্তরের স্টেটগুলোর বিরূদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে। প্রেসিডেন্ট হিসেবে লিঙ্কন যেহেতু রাজধানী ওয়াশিংটনে বাস করতেন, তাই তিনি উত্তরের স্টেটগুলোকে প্রতিনিধিত্ব করতেন।




তিনি জানতেন, এ যুদ্ধে হেরে গেলে আমেরিকা চিরতরে দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যাবে। তাই দেশটাকে অবিভক্ত রাখার জন্য তিনি সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করেছিলেন। এমনকি এসময় দু’-একজন জেনারেল তাঁকে অপমান করলেও সেটা তিনি মুখ বুঝে সহ্য করেন। বলে রাখা ভালো যে, গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার একটি প্রধান কারণ হলো এই যে, লিঙ্কনের সরকার দাসপ্রথা উচ্ছেদের জন্য ব্যবস্থা নিচ্ছিলো, যেটা দক্ষিণের বেশ কিছু স্টেট ভালো চোখে দেখে নি। এক পর্যায়ে স্বপক্ষের বেশকিছু ক্ষমতাধর লোকজন, যেমন একজন জেনারেল তাঁর বিরোধিতা ও অসহযোগিতা শুরু করলে তিনি যুদ্ধে জেতার জন্য সদ্যমুক্ত কৃষ্ণাঙ্গ দাসদেরকে ব্যবহার করেন। মূলত এই কৃষ্ণাঙ্গদের কল্যাণেই তিনি যুদ্ধে বিজয়ী হন।

প্রথম দফায় চার বছর শাসন শেষে তিনি পুনরায় আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। এবার তিনি কৃষ্ণাঙ্গদেরকে ভোটের অধিকার দিতে চাইলেন এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া শুরু করলেন। কিন্তু এ বিষয়টি কিছু বর্ণবাদী লোক মেনে নিতে পারে নি। তাদেরই একজন লিঙ্কনকে গুলি করে হত্যা করে; সারা আমেরিকার লোকজন কান্নায় ভেঙ্গে পরে, যা দীর্ঘদিন স্থায়ী হয়েছিল। এখনো কথায় কথায় আমেরিকার লোকজন লিঙ্কনের প্রসঙ্গ নিয়ে আসে। তাঁকে সমাধিস্থ করা হয়েছিল ইলিনয় স্টেটে।

লিঙ্কন যদি আমেরিকার বিভক্তি ঠেকাতে না পারতেন, তাহলে বিশ্বভূগোলের চেহারা ভিন্ন হতো তথা বিংশ শতাব্দীর ইতিহাস ভিন্নভাবে লেখা হতো। মূলতঃ তিনি ছিলেন ঠাণ্ডা মাথার একজন সত্যিকার দেশপ্রেমিক, প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন সময়েও তিনি যতটা সম্ভব সাধারণ জীবন-যাপন করতেন, আপামর জনগণকে ভালোবাসতেন, মানুষে মানুষে ভেদাভেদ করতেন না। এ সকল কারণেই তাঁকে আমেরিকার সর্বশ্রেষ্ঠ প্রেসিডেন্ট মানা হয়। তিনি এতটাই সাধারণ মানসিকতার ছিলেন যে, বেশি পুলিশ প্রটেকশন ব্যবহার করতে চাইতেন না। তাঁর বক্তব্য ছিল, ‘কেউ যদি আমাকে মারতে চায়, তাহলে কোনো মাপের পুলিশ প্রটেকশন দিয়েই কোনো কাজ হবে না।’

যীশুখ্রিস্ট ও হারকিউলিসের মধ্যকার মিলসমূহ

যীশুখ্রিস্ট কে সেটা নতুন করে বলার দরকার নেই। যীশুখিস্টকে মুসলমানেরা হযরত ঈসা (আঃ) নামে চিনে। তবে যীশুখ্রিস্ট বা ঈসা (আঃ)-এর জীবনী নিয়ে মুসলমান ও খ্রিস্টানদের মধ্যে কিছু মতবিরোধ আছে। এখানে আমরা খ্রিস্টানদের মতামত অনুসারে আলোকপাত করবো। অন্যদিকে, গ্রীক মিথোলজি অনুসারে হারকিউলিস হলেন দেবরাজ জিউসের এক পুত্র, যার জন্ম হয়েছিল কোনো এক মানবীর গর্ভে। তাহলে জেনে রাখুন, যীশুখ্রিস্ট ও হারকিউলিসের মধ্যকার মিলসমূহঃ

(১) দু’জনই বলতে গেলে ঈশ্বরের পুত্র। খ্রিস্ট ধর্মমতে, কুমারী মাতা মেরীর গর্ভে স্বয়ং ঈশ্বরের পুত্র যীশুর জন্ম হয়। আর গ্রীক পুরাকথা অনুসারে, দেবরাজ জিউস ছিলেন সর্বশ্রেষ্ঠ দেবতা বা দেবতাদের রাজা; সুতরাং ঈশ্বর হিসেবে একজনকে বেছে নিতে বলা হলে, সর্বপ্রথমেই আসবে দেবরাজ জিউসের নাম, সেই অর্থে হারকিউলিসও ঈশ্বরের পুত্র ছিলেন।

(২) দু’জনেই আর্ত-মানবতার কল্যাণে আজীবন নিয়োজিত ছিলেন।

(৩) দু’জনের জীবনই অনেক সংগ্রামের ছিল; দুঃখ-কষ্ট, অভাব-বঞ্চনার মধ্য দিয়ে কেটেছে।

(৪) দুজনেই তাদের জীবদ্দশায় ‘জারজ’ তকমা ধারণ করেন। কুমারী মাতা মেরীর গর্ভে জন্মগ্রহণ করায় যীশুখ্রিস্ট শৈশব থেকেই ‘জারজ’ উপাধি লাভ করেন। আর, হারকিউলিস আসলেই দেবতা জিউসের অবৈধ সন্তান ছিলেন।

(৫) দু’জনেরই যুবক বয়সে মর্ত্য-জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে। এর মধ্যে হারকিউলিস স্বেচ্ছায় আত্মাহুতি দেন, আর এক কুচক্রীর ষড়যন্ত্রে  যীশুর জীবনাবসান ঘটে।




(৬) দু’জনেই আগে থেকে সম্ভাব্য মৃত্যুর ব্যাপারে জানতেন। হারকিউলিস যখন ১২টি অসাধ্য কাজ সাধন করেও মনের শান্তি পেলেন না পুরনো একটি দুর্ঘটনার স্মৃতি মনে করে (সৎ মাতা হেরার কালো-জাদুর কারণে এক রাতে তার মাথা বিগড়ে যায় এবং নিজের স্ত্রী-সন্তানদেরকে শত্রু বিবেচনা করে হত্যা করেন), তখন তিনি আত্মাহুতির মাধ্যমে নিজের সব জ্বালা-কষ্ট অবসানের সিদ্ধান্ত নিলেন। আর যীশুখ্রিষ্ট জানতেন যে, তাঁর ১২ সাহাবীর মধ্যে এক বিশ্বাসঘাতক তাঁকে রোমানদের হাতে ধরিয়ে দেবে।

(৭) দু’জনেই স্ব-স্ব পিতার কাছে অমর হিসেবে প্রত্যাবর্তণ করেন। দেবরাজ জিউস যখন দেখতে পেলেন যে, তাঁর পুত্র হারকিউলিস একজন সত্যিকারের বীর এবং সে তার মর্ত্যের জীবনে বহু ভোগান্তির সম্মুখীন হয়েছে, তখন পুত্রের প্রতি তাঁর দয়া হয়। তাই চিতার আগুনে জ্বলে হারকিউলিস যখন আত্মাহুতি দিলেন, তখন অনতিবিলম্বে জিউস তাকে পুনরুজ্জীবিত করেন এবং অমরত্ব প্রদান করে স্বর্গে নিজের কাছে আশ্রয় দেন। আর যীশুখ্রিস্ট কীভাবে অমর হলেন সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। মৃত্যুর দুই দিন পর ইস্টার সানডেতে তাঁর পুনরুত্থান ঘটে (ঈশ্বরই এই পুনরুত্থান ঘটান)। তখন যীশু মানব সম্প্রদায়ের কাছে সাময়িকের জন্য আবারো ফিরে আসেন এবং আরো কিছু দিক-নির্দেশনা দিয়ে যান।

আসুন, আমরা এই দুই মহাপুরুষের জন্য অন্তর থেকে প্রার্থনা করি।



‘ভিলেন’ যখন সন্তানবৎসল পিতা

পাবলো এসকোবারের নাম শুনেছেন? তিনি হলেন কলম্বিয়ার প্রাক্তন মাদক সম্রাট। তিনি তার যোগাযোগের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকাকে মাদকের স্বর্গরাজ্য বানিয়ে নিয়েছিলেন এবং এভাবে হাজার হাজার কোটি টাকা নিজের পকেটস্থ করেছিলেন। যে-ই তার পথের কাঁটা হয়েছিল, তাকেই তিনি শেষ করেছেন। কয়েকশত পুলিশ ও বিচারকের মৃত্যুর জন্য দায়ী তিনি। এমনকি কলম্বিয়ার তৎকালীন শাসকগোষ্ঠীও তাঁর বিরুদ্ধে আঙ্গুল তুলতে সাহস পেত না। অর্থ আর অস্ত্রের জোরে দীর্ঘদিন ধরে কলম্বিয়ার প্রতিটি সেক্টরই তিনি নিয়ন্ত্রণ করেছিলেন। সত্যি বলতে কি, ডন হবার পর যতদিন বেঁচে ছিলেন, ততদিন তিনিই ছিলেন কলম্বিয়ার অঘোষিত শাসনকর্তা। কিন্তু তাঁর শেষটা ভালো হয় নি, ১৯৯৩ সালে সিআইএ-‘র হাতে তাঁকে মরতে হয়েছিল। জীবদ্দশায় তাঁর জন্য দুঃখের ব্যাপার হলো, তিনি যত অর্থ কামিয়েছিলেন তার বেশিরভাগই বিভিন্নভাবে নষ্ট হয়েছিল। তিনি বালিশের মধ্যে, তোষকের নিচে এমনকি মাটির নিচেও অর্থ পুঁতে রাখতেন।

তবে মানুষ হিসেবে তিনি যেমনই হোন না কেন, নিজের সন্তানদেরকে অত্যধিক ভালোবাসতেন। এবার তাঁর সন্তানবৎসলতার একটি কাহিনী শোনা যাক। একবার তিনি তাঁর এক নাবালক মেয়েকে নিয়ে জঙ্গলে আশ্রয়ে নিয়েছিলেন, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে। সে রাতে প্রচণ্ড শীত পড়েছিল, তাঁর কাছে তেমন কোনো শীতবস্ত্র বা কম্বল ছিল না। তাই নিজের মেয়েকে শীতের হাত হতে বাচাঁতে সেই রাতে তিনি তাঁর সাথে থাকা কয়েক মিলিয়ন ডলার আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছিলেন। টাকাগুলো পুড়ে যে উত্তাপ তৈরি করেছিল, তার দ্বারাই বাপ আর মেয়ে মিলে শীত নিবারণ করেছিলেন। সমাজে ভিলেন হিসেবে পরিচিত হলেও ঐদিন তিনি নিজেকে সন্তানবৎসল পিতা হিসেবে চরম দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন।



এবার রামায়ণের কথাই ধরুন। রামায়ণ অনুসারে রাবণের আগে তাঁর দুই পুত্র নিহত হয়েছিলেন। এ নিয়ে মাইকেল মধুসূদন দত্ত ‘মেঘনাদবধ কাব্য’ রচনা করেন। এই কাব্যে রাবণকে ভিলেন হিসেবে নয়, বরং একজন সন্তানবৎসল পিতা হিসেবে দেখানো হয়েছে। তাঁর পুত্র মেঘনাদ যখন মারা যান, তখন রাবণ তাঁর বাড়ির বারান্দায় দাঁড়িয়ে মেঘনাদের মৃতদেহ সনাক্ত করার জন্য এদিক-ওদিক তাকাতে থাকেন। এসময় তাঁর বুকটা খা-খা করতে থাকেন। তিনি তাঁর মৃত সন্তানের জন্য অসীম মমতা আর শোক অনুভব করেন। পুত্রের মৃত্যুতে তাঁর পাষাণ হৃদয় কিছুটা হলেও গলে যায়, শোকে মুহ্যমান হন তিনি। তিনি তাঁর পুত্রহত্যার প্রতিশোধ নেয়ার জন্য দৃঢ়ভাবে সংকল্পবদ্ধ হন।

পৃথিবীর প্রতিটি পিতাই সন্তানবৎসল। নিজে মানুষ হিসেবে ভালো বা খারাপ যেমনই হোন না কেন, সন্তানকে নিজের জীবনের চেয়ে বেশি ভালোবাসেন। 

জেনে নিন ফেরাউন কে ছিলেন

ফেরাউনকে ইসলামের সকল অনুসারী (এবং সম্ভবত ইহুদীরাও) খারাপ চোখে দেখে। মজার ব্যাপার হলো, ‘ফেরাউন’ শব্দটি কোনো নির্দিষ্ট ব্যক্তির নাম নয়, বরং এটি একটি বংশের নাম। দীর্ঘ একটা সময় (প্রায় কয়েকশত বছর) ধরে মিশরের সম্রাটকে ‘ফেরাউন’ বা ‘ফারাও’ বলা হতো। বংশ পরম্পরায় ক্ষমতায় আসা এই সম্রাটেরা নিজেদেরকে ‘ঈশ্বর’ বলে দাবী করতেন, ফলে মিশরের তৎকালীন অধিবাসীরাও ফারাওকে ঈশ্বর বলে মেনে নিতে বাধ্য হতেন। তবে ফেরাউন নামে যে ব্যক্তিটিকে মুসলমানেরা জানে তাঁর প্রকৃত নাম হলো ‘রেমেসিস’। শত্রু হবার পূর্ব পর্যন্ত তিনি ছিলেন মুসা (আঃ)-এর পালক ভাই। আরো সঠিকভাবে বলতে গেলে, মুসা (আঃ) ছিলেন রেমেসিসের পালক ভাই, কারণ রেমেসিসের মা (সম্রাটের স্ত্রী) মুসা (আঃ)-কে নীল নদের কিনারে কুঁড়িয়ে পেয়ে তাঁকে লালনপালন করে বড় করেন।



তাঁরা দু’জন প্রায় সমবয়সী ছিলেন এবং একসাথেই বেড়ে উঠেন। ইতিহাস ঘেঁটে জানা যায় যে, মুসা নবী ছোটকাল থেকেই প্রচণ্ড দুর্দান্ত ও দুষ্ট ছিলেন। তিনি প্রায়ই দুষ্টামি ও অঘটন ঘটিয়ে ভাই রেমেসিসের উপর এর দায়ভার চাপিয়ে দিতেন। এজন্য রেমেসিস ছোটকাল থেকেই ভিতরে ভিতরে মুসা নবীর প্রতি ক্ষেপে ছিলেন। তাঁরা দু’জন প্রায় সমবয়সী হলেও রেমেসিস মুসা নবীর চেয়ে বয়সে কিছুটা বড় ছিলেন, তাই রেমেসিসই ছিলেন সাম্রাজ্যের পরবর্তী দাবীদার। রেমেসিসের পিতা তথা তৎকালীন সম্রাট প্রায় সবসময়ই সিংহাসনের উত্তরাধিকারী তাঁর বড় পুত্রের উপর ক্ষেপে থাকতেন, কারণ তাঁদের দু’ভাইয়ের দুষ্টুমির বেশিরভাগ অভিযোগই রেমেসিসের নামে আসতো। সম্রাটের আশংকা ছিল এই যে, রেমেসিসের কারণেই হয়তো শতশত বছর ধরে চলে আসা তাঁদের পারিবারিক সংস্কৃতি ও রাজত্ব হুমকির মুখে পড়বে। অর্থাৎ তিনি বলতে চাইতেন, রেমেসিসের কারণেই ফেরাউন বা ফারাওদের রাজত্বের অবসান ঘটতে পারে। সম্রাট তাঁর নিজের পুত্রকে সর্বদাই আরো কঠোর ও সতর্ক হওয়ার জন্য বলতেন, কিন্তু তারপরও রেমেসিস প্রায়ই বিতর্কের মুখে পড়তেন।

এ ব্যাপারগুলো নিয়ে তিনি সর্বদাই বিব্রত থাকতেন, একারণে তিনি তাঁর পালক ভাই মুসা (আঃ)-কে কখনোই ভালো চোখে দেখতেন না। পরবর্তীতে মুসা নবী যখন নবুওয়্যত প্রাপ্ত হলেন, তখন রেমেসিসই ছিলেন মিশরের সম্রাট, কারণ তাঁদের পিতা ইতিমধ্যেই বিগত হয়েছেন। এসময় মুসা নবী যখন রেমেসিসকে আল্লাহ’র (একমাত্র স্রষ্টা) দাওয়াত দিলেন এবং বনী ইসরাইল বংশের লোকদেরকে ছেড়ে দিতে বললেন, তখন রেমেসিস তা অস্বীকার করলেন। আল্লাহ’র অস্তিত্বকে অস্বীকার করলেও তিনি তাঁর পালক ভাই মুসা’র অনুরোধে ঐ লোকগুলোকে ছেড়ে দিতেন ঠিকই, কিন্তু তাঁর বিগত পিতার কথাগুলো সবসময়ই তাঁর কানে বাজতো ‘তুমি হলে বংশের কুলাঙ্গার, তোমার কারণেই শতশত বছর ধরে চলে আসা আমাদের বংশীয় রাজত্ব ও ঐতিহ্যের পতন ঘটবে।’ এ কথাগুলো স্মরণ করেই রেমেসিস কঠোর অবস্থানে গেলেন এবং বনী ইসরাইল বংশের দাসদেরকে ছেড়ে দিতে অস্বীকার করলেন।

পরবর্তী ঘটনাসমূহ সবারই জানা। মিশরের উপর আল্লাহ’র গজব নেমে আসলো এবং ‘সোনা’র মিশর প্রায় শ্মশানভূমি হয়ে গেলো। রেমেসিস এরপরও চুপচাপ ছিলেন এবং এ ‘গজব’গুলো সহ্য করার চেষ্টা করলেন, অর্থাৎ মুসা নবীকে আটকের বা জানে মেরে ফেলার কোনো পদক্ষেপ তিনি নেন নি। কিন্তু আল্লাহ’র গজবের দরুণ যখন তাঁর স্বীয় নাবালক পুত্র মারা গেল, তখন তাঁর মাথা আউলা হয়ে গেল। তখন তিনি প্রথমতঃ বনী ইসরাইল বংশের লোকদেরকে ছেড়ে দিলেও পরবর্তীতে সৈন্যবাহিনী সাথে নিয়ে মুসা নবীসহ তাদের সবাইকে নীল নদের মধ্যে মেরে ফেলার চেষ্টা করলেন। এতে হলো কী, মুসা নবীসহ বনী ইসরাইলের লোকজন নদী পার হতে পারলেও ফেরাউন রেমেসিস তাঁর সৈন্যদলসহ সেখানে ডুবে মরলেন।