এক মহিলা শেফ ও তার মায়ের সাথে পরিচয় পর্ব

Hello ladies and gentlemen, I am Shivang here with another incident of mine. I haven’t submitted any story for long, apologies for the same. For the newbies here, I am Shivang(pen-name), 24 from Mumbai. I lived in Toronto- shifted to Mumbai around 7 months back.

হ্যালো, ভদ্র মহিলা ও ভদ্র পুরুষগণ, আমি শিবাঙ আরেকটি ঘটনা নিয়ে হাজির হয়েছি। অনেকদিন ধরে কোনো গল্প জমা দেই না, এই কারণে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। নতুন যারা আছেন, তাদের জ্ঞাতার্থে জানাচ্ছি, আমি শিবাঙ (কলম নাম), বয়স ২৪, মুম্বাই থাকি। আগে কানাডার টরন্টোতে থাকতাম, সাত মাস আগে মুম্বাই চলে এসেছি।




So this incident happened on the recent long weekend which we got, thanks to the Republic Day of India. So I ventured out to Kasara, a hill station close to Mumbai. I was alone as I enjoy solo trips.

ঘটনাটা ঘটেছিল ভারতের গণপ্রজাতন্ত্রী দিবস উপলক্ষে সম্প্রতি যে লম্বা ছুটি পেয়েছিলাম সে সময়। মুম্বাইয়ের কাছাকাছি একটা পাহাড়ি অঞ্চল ‘কাসারা’তে বেড়াতে গিয়েছিলাম। একা গিয়েছিলাম কারণ একা ঘুরতেই আমার মজা লাগে।

I booked a room in one of the resorts and reached the place. The weather was perfect for a quiet, peaceful weekend. I reached the place at 3pm. I kept my bag in the room and came down to the restaurant for lunch. Since it was past 3pm, I was the only person in the restaurant.

একটা অবকাশ যাপন কেন্দ্রে আগেই একটা কক্ষ বুক করেছিলাম, সেখানে গিয়ে পৌছালাম। আবহাওয়াটা ছিল নিরালা ও শান্তিপূর্ণ ছুটির জন্য সর্বোত্তম। আমি ওই জায়গায় দুপুর ৩টা বাজে গিয়ে পৌছালাম। কক্ষে ব্যাগ রেখে রেস্তোরাঁয় আসলাম দুপুরের খাবার খাওয়ার জন্য। যেহেতু ৩টার বেশি বেজে গিয়েছিল, তাই সেখানে আমিই ছিলাম একমাত্র ব্যক্তি।

I ordered my food and when the same arrived, I found the food cold and tasteless. I was infuriated. I called the Manager. Due to a spike in the no. of guests, he was in a foul mood as well and denied the Chef’s mistake.

খাবার অরডার দিলাম। যখন সেটা আসলো, দেখতে পেলাম খাবারটা ঠাণ্ডা ও বিস্বাদ। আমি ক্ষেপে গিয়ে ম্যানেজারকে ডাকলাম। হঠাৎ করে (অবকাশ যাপন কেন্দ্রে) মেহমানের সংখ্যা বেশ বেড়ে গিয়েছিল, তাই ম্যানেজারের মুডও ভালো ছিল না। সে শেফের ভুল অস্বীকার করলো।

I called out for the chef. I was surprised to see a middle-aged woman come out of the kitchen wearing the chef’s clothes. I read her name on her batch- Dhara. Without listening to what she wanted to say, I unloaded my anger over her. She listened to me silently. Then she apologised and brought me fresh, edible food.

আমি শেফকে ডেকে পাঠালাম। আমি দেখে অবাক হলাম যে, শেফের পোশাক গায়ে এক মধ্যবয়সী মহিলা বেরিয়ে আসলো। ব্যাচে তার নাম দেখতে পেলাম, ধারা। সে কিছু একটা বলার জন্য মুখ খুললো, আমি সেটা না শুনেই তাকে ঝাড়ি দিলাম। সে খালি চুপচাপ শুনলো। তারপর ক্ষমা চেয়ে তরতাজা ও ভক্ষণযোগ্য খাদ্য এনে দিল।

After my lunch, I felt bad to have upset the Chef, so I asked one of the waiters about her. He- Ashok, said that Dhara had left for the day as she is just the lunch-chef at the Resort. I decided I will apologise to her the next day during lunch.

খাবারের পর শেফকে ঝাড়ি দেওয়ার জন্য আমার খারাপ লাগলো, তাই এক ওয়েটারকে তার ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলাম। অশোক নামের ওই ওয়েটার জানাল, ধারা সেদিনের মতো চলে গিয়েছে, কারণ সে ওই অবকাশ যাপন কেন্দ্রে কেবল দুপুরের খাবারের শেফ। আমি ঠিক করলাম, পরের দিন লাঞ্চের সময় তার কাছে ক্ষমা চাইবো।

Coincidentally, I met her that very evening in the market. She was buying groceries. I tapped her shoulder. She looked at me and had her eyebrows up. I reminded her who I was. She said she remembers me as no other guest has shouted so much at her.

কাকতালীয়ভাবে ওই দিন সন্ধ্যায়ই তার সাথে বাজারে দেখা হলো, সে মুদি জিনিসপত্র কিনছিল। আমি তার কাধে আলতো করে ছুলাম। সে আমার দিকে তাকিয়ে চোখের ভ্রু উচু করলো। আমি বললাম, আমাকে চিনতে পারছেন না? সে বললো, চিনতে পেরেছে; আজ পর্যন্ত অন্য কোনো মেহমান তার সাথে এতো রাগারাগি করে নি।

I felt worse and apologised to her. She smiled. We started walking in the market. I asked her about her life. She said she was a divorcee, who now worked as a chef at the restaurant and lived just a kilometre away from the resort, with her mother.

শুনে আমার আরো খারাপ লাগলো, তার কাছে ক্ষমা চাইলাম। সে হাসলো। আমরা দুজনে একসাথে হাটা শুরু করলাম। আমি তার ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে জানতে চাইলাম। সে জানাল, সে একজন তালাকপ্রাপ্তা, যে কিনা এখন একজন শেফ হিসেবে কাজ করে রেস্তোরাঁয়। অবকাশ যাপন কেন্দ্রটি থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দূরেই সে তার মাকে নিয়ে এক বাড়িতে বসবাস করে।

We reached the resort. I apologised again, shook her hand and came to my room. She went ahead to her home. The next day, I went to the restaurant at 1pm for lunch. I ordered my food and went inside the kitchen. I greeted Dhara. She smiled and said she is very busy right now as there were many guests at the restaurant. She agreed to meet me in the evening. I was glad. I gave her my phone no.

আমরা রিসোর্ট এর কাছাকাছি পৌছালাম। আমি আবার তার কাছে ক্ষমা চেয়ে তার সাথে হাত মিলিয়ে আমার কক্ষে ফেরত গেলাম। সে সামনে এগিয়ে গেল, তার বাসার উদ্দেশ্যে। পরের দিন দুপুর একটা বাজে রেস্তোরাঁয় গেলাম লাঞ্চের জন্য। আমি খাবারের অরডার দিয়ে রান্নাঘরের ভেতর প্রবেশ করলাম। আমি ধারাকে সম্ভাষণ জানালাম, সে হাসলো; বললো, এই মুহূর্তে সে খুব ব্যস্ত, কারণ রেস্তোরাঁয় অনেক মেহমান। সে আমার সাথে সন্ধ্যায় দেখা করার জন্য রাজি হলো। আমি খুশি হলাম, আমি তাকে আমার ফোন নাম্বার দিলাম।

Describing Dhara, she was in her late 30s. She was a short woman, around 5’5 in height and slim. I can sum up her figure to 34-28-36. She was fair- as most women living in hilly areas are.

ধারার বিবরণ দেই একটু। তার বয়স ৩৭ কি ৩৮ এমন। সে একজন খাটো মহিলা, উচ্চতা ৫ ফুট ৫ ইঞ্চি, দেহ একহারা গড়নের। আন্দাজ করলাম, তার ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস হবে ৩৪-২৮-৩৬। তার গায়ের রং ছিল শ্যামলা, পাহাড়ে বসবাসকারী বেশিরভাগ মহিলাদের গায়ের রং যেমন হয়।

I got a call from her at 4pm, asking me to come outside the resort gate. I reached there and she was waiting for me. She was wearing skin-tight red leggins and an orange kurti. We again took a walk for an hour after which she invited me over to her house for dinner. I don’t know why, but I instantly agreed.

বিকাল ৪টায় সে কল করলো আমাকে, অবকাশ যাপন কেন্দ্রের সদর দরজার বাইরে আসতে বললো। আমি সেখানে গিয়ে পৌছালাম, সে আমার জন্য অপেক্ষা করছিল। চামড়ার সাথে আটসাটভাবে লেগে আছে এমন একটি লেগিং এবং একটি কামিজ পরে ছিল সে। আমার দুজনে আবার এক ঘণ্টা ধরে হাটলাম। এর পর সে আমাকে তার বাসায় রাতের খাবারের জন্য দাওয়াত দিল। আমি জানি না কী কারণে, কিন্তু সাথে সাথে রাজি হয়ে গেলাম।

She took me to her home. It was a lovely small bungalow, just one storey big. There were 2 rooms and a small garden ahead of it. I greeted her mother, who gave me suspicious looks. Dhara introduced me to her mother as “that guest who shouted at me” and started laughing. I was embarrassed. Dhara’s mother smiled too and invited me inside the house.

সে আমাকে তার বাসায় নিয়ে গেল। এটা ছিল ছোট কিন্তু খুব সুন্দর একটি বাংলো, কেবল এক তলা। বাড়িতে দুটি কক্ষ ছিল এবং সামনে ছোট একটি বাগান ছিল। আমি তার মাকে সম্ভাষণ জানালাম, কিন্তু ওই আধবুড়ি মহিলা আমার দিকে সন্দেহের চোখে তাকাতে লাগলো। ধারা তার মায়ের সাথে এইভাবে আমাকে পরিচয় করিয়ে দিল, ‘ এই সেই মেহমান যে আমার সাথে চিল্লাইছিল’। এই বলে সে হাসা শুরু করলো। আমি বিব্রত হলাম। ধারার মাও হাসলো এবং আমাকে ভিতরে আসতে বললো।

Dhara took me to her bedroom and again we talked about our lives. I gathered some courage and asked her about her marriage. She smiled and said she has forgotten the guy far long back as he used to torture her. They had a son(who is now 15) who was sent to a boarding school by his father and still studies there.

ধারা আমাকে তার বিছানা কক্ষে নিয়ে গেল। আবারও আমরা আমাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আলাপ করলাম। আমি কিছুটা সাহস সঞ্চয় করে তার বিয়ের ব্যাপারে তাকে জিগ্যেস করলাম। সে হেসে জানাল, ওই ব্যাটাকে অনেক আগেই ভুলে গেছে যে তাকে অত্যাচার করতো। তাদের এক ছেলেসন্তান আছে যার বয়স বর্তমানে ১৫ বছর। তার পিতা তাকে এক বোরডিং স্কুলে পাঠিয়ে দিয়েছে, এখনো সে ওখানেই পড়াশুনা করে।

I applauded her for her will power and resistance. She again smiled and went in the kitchen to cook dinner for me. Dhara’s mother came in the room to keep me company while Dhara cooked dinner.

আমি তার মনোবল ও প্রতিবাদ প্রবণতার জন্য তাকে প্রশংসা করলাম। সে আবার হাসলো এবং রান্নাঘরে ঢুকলো আমার জন্য রাতের খাবার রান্না করার উদ্দেশ্যে। ধারার মা ওই কক্ষে আসলো (যে কক্ষে আমি বসে ছিলাম) আমাকে সঙ্গ দেয়ার জন্য, যতক্ষণ ধারা রান্নার কাজ করছে।

“How much did she charge you for a night?” Asked Dhara’s mother. I was surprised as I didn’t understand her. I asked her what she meant. “Oh come on now. It’s okay. She thinks I don’t know but I do. How much did she ask from you tonight?” I was getting more and more surprised. I just stared at her blankly.

“এক রাতের জন্য তোমার কাছ থেকে কত নিবে সে?” ধারার মা আমাকে জিগ্যেস করলো। আমি অবাক হলাম, কারণ তার কথা বুঝতে পারি নি। আমি তাকে জিগ্যেস করলাম, কী বলতে চাচ্ছে। সে বললো, ‘আরে মিয়া, ঘাবড়াও কেন? এতে খারাপের কী আছে? সে ভাবে আমি কিছু জানি না; আমি কিন্তু সবই জানি। আজকে রাতের জন্য তোমার কাছে কত চেয়েছে সে?’ তার কথাবার্তা শুনে আমি আরো অবাক হচ্ছিলাম। আমি তার দিকে কেবল শূন্য দৃষ্টিতে (অর্থাৎ হা করে) চেয়ে থাকলাম।

“You don’t think wrong of her. She is a woman. She has her needs. Once a month or so- she calls some random guy she meets; at home for sex. She charges xxx amount. That’s what keeps her happy. So I don’t mind. We are not too well-to-do. And we are desperate for money as we wish to settle in a big city like Mumbai. She has been charging 3000rs for a night. Wait.” Dhara’s mother left the room, probably to check on her daughter. She returned within a few seconds. “Can you give me Rs.500? I will show you my naked body!”

‘তবে তুমি কিন্তু তার সম্পর্কে খারাপ ভেবো না। সেও তো একটা নারী, তারও তো শারীরিক চাহিদা আছে। মাসে দু একবার সে পরপুরুষ নিয়ে আসে বাসায়, সেক্স করার জন্য। সে তাদের কাছ থেকে (এই পরিমাণ) টাকা নেয়। এটা করেই সে সুখ পায়। তাই আমি কিছু মনে করি না। আমরা আবার বেশি স্বচ্ছলও না। আমাদের টাকার খুব দরকার কারণ আমরা মুম্বাইয়ের মতো বড় কোনো শহরে থিতু হতে চাই। সে ইদানিং এক রাতের জন্য ৩০০০ রুপি করে নিচ্ছে। দাঁড়াও।’ এই কথাগুলো বলে ধারার মা কক্ষ থেকে বেরিয়ে গেল, সম্ভবত তার মেয়ে কী করছে দেখার জন্য। সে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে ফিরে এলো; বললো, ‘তুমি আমাকে ৫০০ রুপি দিতে পার? আমি তোমাকে আমার নগ্ন শরীর দেখাব।’

I was listening to her dumbstruck! Here, a lady in her early 60s was asking for 500 bucks from me to show her naked body. I became excited and gave her Rs.1000. She became happy. Dhara’s mother’s name was Pravina. Pravina quickly shut the door and started undressing. She was wearing a saree. She let go of her saree, then her petticoat, then her blouse. She was not wearing any bra- she removed her black panty as well.

আমি হতভম্ব হয়ে তার কথা শুনছিলাম। ৬০ বছর বয়সী এক মহিলা আমার কাছে ৫০০ রুপী চাচ্ছে নেংটা হয়ে দেখাবে বলে। আমি উত্তেজিত হয়ে তাকে ১০০০ রুপী দিয়ে দিলাম। সে খুশি হল। ধারার মায়ের নাম হল প্রাভিনা। প্রাভিনা তাড়াতাড়ি দরজা বন্ধ করে কাপড়-চোপড় খোলা শুরু করলো। সে একটা শাড়ি পরে ছিল, সে শাড়িটা খুলে নিচে ফেলে দিল। এরপর সায়া ও ব্লাউজও খুলে ফেললো। সে ভিতরে কোনো ব্রা পরে নি। সে তার কালো প্যান্টিও খুলে ফেললো।

Pravina had big saggy breasts, and hairy pussy. “You gave me 1000. You deserve more” she said. She removed my pant, took my dick in her mouth and started sucking me. I started playing with Pravina’s breasts. I pinched her nipples. She kept sucking until I cummed in her mouth. She quickly went into the washroom and cleaned herself. She asked me to go and check on Dhara.

প্রাভিনার স্তনগুলো ছিল বড় ও ঝুলে যাওয়া আর তার যোনি ছিল লোমশ। “তুমি আমাকে ১০০০ রুপী দিয়েছো, তোমার বেশি কিছু পাওয়া উচিত” সে বললো। সে আমার প্যান্ট খুলে পুরুষাঙ্গটা মুখে নিয়ে চোষা শুরু করলো। আমি প্রাভিনার স্তন জোড়া নিয়ে খেলতে শুরু করলাম। আমি তার দুধের বোটায় চিমটি কাটছিলাম। আমি তার মুখে বীর্যপাত করার আগ পর্যন্ত সে আমার লিঙ্গ চুষতেই থাকলো। এরপর সে দ্রুত ওয়াশরুমে গিয়ে নিজেকে পরিষ্কার করে নিল। ধারা কী করছে সেটা সে আমাকে গিয়ে দেখতে বললো।

I wore my pant and went into the kitchen. Dhara was cooking while talking to someone on phone. I went back into the room. Pravina was putting on her saree. I pulled her close and kissed her lips. She too responded. I pressed her breasts from above her blouse. She bit my lips. We then broke the kiss and she went out of the room.

আমি প্যান্ট পরে রান্নাঘরে গেলাম। ধারা রান্না করছিল, আর ফোনে কার সাথে যেন কথা বলছিল। তারপর সেই আগের কক্ষে ফিরে গেলাম। প্রাভিনা তখন শাড়ি পরছিল। আমি তাকে কাছে টেনে নিয়ে তার ঠোঁটে চুমু খেলাম। সেও সাড়া দিল। আমি ব্লাউজের উপর দিয়েই কিছুক্ষণ তার স্তন টিপলাম। সে আমার ঠোঁটে কামড় দিল। তারপর আমরা চুমু খাওয়া বন্ধ করলাম আর সে তখন ওই কক্ষ থেকে বের হয়ে গেল।

I sat on the bed to comprehend what had just happened. Soon after, Dhara served the dinner. We all had dinner and by 8’30, Pravina retired to her bedroom to sleep. I didn’t tell Dhara what I got to know about her from her mother, I decided to wait. I took her leave to go back to the resort, but she asked me to stay for a while as she was feeling lonely.

আমি বিছানায় বসে পড়লাম, কী ঘটলো সেটা বোঝার জন্য। কিছুক্ষণের মধ্যেই ধারা রাতের খাবার পরিবেশন করলো। আমরা একসাথে বসে সেটা খেলাম, আর প্রাভিনা রাত সাড়ে আটটার মধ্যেই তার কক্ষে ঘুমাতে চলে গেল। আমি ধারাকে বললাম না, তার সম্পর্কে কী জানতে পেরেছি তার মায়ের কাছ থেকে। আমি অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত নিলাম (অর্থাৎ দেখি কী হয়, দরকার হলে পরে বলবো)। আমি তার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে অবকাশ যাপন কেন্দ্রে ফিরে যেতে চাইলাম। সে আমাকে আরো কিছুক্ষণ থাকতে বললো, কারণ তার একা লাগছিল।

I felt this was how she used to make guys feel sorry for her and trick them into having sex with her and pay her later. I agreed to stay but made up my mind to not fall for her cheap tricks. I don’t know why but I felt betrayed by Dhara even though she made no commitment to me. We watched TV for a while when Dhara said she wanted to tell me something.

আমি বুঝলাম যে, সে এভাবেই কাহিনী করে পুরুষদেরকে তার কাছে ‘সরি’ বলায়, তাদের সাথে চালাকি করে সেক্স করে আর পরে তার পাওনা বুঝে নেয়। আমি (তার অনুরোধে) আরো কিছুক্ষণ থাকতে রাজী হলাম, তবে ঠিক করলাম – তার কোনো সস্তা চালাকির ফাঁদে পা দেব না। জানি না কেন মনে হল, ধারা আমার সাথে গাদ্দারি করেছে, যদিও তার সাথে আমার কোনো প্রতিশ্রুতি বা অঙ্গীকার এর ব্যাপার ছিল না। আমরা কিছুক্ষণ টিভি দেখলাম। এর পর ধারা বললো, সে আমাকে কিছু বলতে চায়।

Dhara told me everything, how she used to have sex with guys and charged them for the same. I was shocked as I didn’t expect Dhara to confess everything. I just nodded, not knowing how to respond.

ধারা আমাকে সবকিছু খুলে বললো-কীভাবে সে পুরুষদের সাথে সেক্স করে আর তাদের কাছ থেকে টাকা আদায় করে। আমি হতবাক হলাম, কারণ আশা করি নি সে এইভাবে সবকিছু স্বীকার করবে। আমি শুধু মাথা ঝাকাতে থাকলাম, কারণ বুঝতে পারছিলাম না কীভাবে সাড়া দেব বা প্রতিক্রিয়া দেখাব।

Dhara came near to me, made me stand up and hugged me. “But I felt differently with you. I don’t want to trick you for sex. I don’t want any money from you. I want to have sex with you but with your permission. I am sorry, please don’t judge me.”

ধারা কাছে এসে আমাকে দাঁড় করালো এবং জড়িয়ে ধরলো। ‘কিন্তু তোমার জন্য আমার অনুভূতি অন্যরকম। আমি চালাকি করে তোমার সাথে যৌনতা করতে চাই না। আমি তোমার কাছে টাকা চাই না। আমি তোমার সাথে কেবল সেক্স করতে চাই, তবে সেটা তোমার অনুমতি সপেক্ষে। আমি দুঃখিত, আমাকে ভুল বুঝো না।’

I hugged her back, broke the hug and kissed her forehead. She kissed my lips and I kissed her back. She broke the kiss and stared deep into my eyes. I held her shoulders as if comforting her. She jumped on me and started kissing and biting my neck and face. I let out a soft moan.

আমিও তাকে জড়িয়ে ধরলাম, পরে আলিঙ্গন হতে মুক্ত হয়ে তার কপালে চুমু খেলাম। সে আমার ঠোঁটে চুমু খেল, আমিও তাকে পাল্টা চুমু খেলাম। পরে সে একসময় চুমু খাওয়া বাদ দিয়ে আমার চোখে গভীরভাবে তাকালো। আমি স্বান্তনা দেওয়ার ভঙ্গিতে তার কাধ ধরলাম। সে আমার উপর ঝাপিয়ে পরে তীব্রভাবে চুমু খাওয়া শুরু করলো, আমার ঘাড়ে ও চেহারায় কামড় দিতে লাগলো। আমি হালকা স্বরে গুঙিয়ে উঠলাম।

I removed Dhara’s top. She was wearing a dark blue bra. I held her breasts above her bra and again kissed her lips. We rushed into the bedroom, smooching all the way. Once inside, I tore off all her clothes.

আমি ধারার কামিজ খুলে ফেললাম। সে গাঢ় নীল রঙের একটা ব্রা পরে ছিল। আমি ব্রা’র উপর দিয়েই তার দুধে হাত দিলাম এবং চুমু খেতে শুরু করলাম। আমরা দুজনে তাড়াহুড়ো করে বিছানাকক্ষে গেলাম, যেতে যেতে চুমু খেতে থাকলাম। সেখানে গিয়ে আমি তার সব জামাকাপড় ছিড়ে ফেললাম।

She was naked now. She had medium sized breasts. No sag. She had mild brownish nipples. She also had a mole just below her left areola. That made me crazy.

সে তখন পুরোপুরি নেংটা। তার স্তনগুলো ছিল মধ্যম আকারের, ঝুলে পরে নি। তার দুধের বোটাগুলো ছিল কিছুটা বাদামী। তার বাম এরিওলার ঠিক নিচে একটা আচিল ছিল ( স্তনের বোটার চারদিকে যে বাদামী বা কালো রঙের বৃত্ত থাকে, তাকে এরিওলা বলে)। ওটা দেখে তো আমি পাগল হয়ে গেলাম।