যৌন সম্পর্ক নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য ও প্রতিবাদ

‘কাস্টিং কাউচ কোনো খারাপ বিষয় নয়। কাজ দেয়। অন্তত ধর্ষণ করে ছেড়ে তো দেয় না।’ সম্প্রতি এই মন্তব্য করেছেন সরোজ খান, ‘দেবদাস’ (২০০৩), ‘শ্রীঙ্গারাম’ (২০০৬) ও ‘যব উই মেট’ (২০০৮) ছবির জন্য ‘সেরা কোরিওগ্রাফি’ বিভাগে তিনবার ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। তিনি আরও বলেন, ‘শিল্পীদের অনেক সুযোগ রয়েছে। যাঁরা কাজের বিনিময়ে কিছু চান, তাঁদের সঙ্গে কাজ না করলেই হয়। যখন তোমার প্রতিভা রয়েছে, তখন নিজেকে কেন বিক্রি করবে?’

সরোজ খানের মতো ব্যক্তি যখন এমন মন্তব্য করেছেন, এরপর তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে সমালোচনা শুরু হয়। প্রখ্যাত এই নৃত্যশিল্পী পরে নিজের ভুল বুঝতে পেরে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমার বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা করবেন না। আমি বলতে চেয়েছি, যৌন হেনস্তা সবখানেই ঘটছে। শুধু বলিউডকে টার্গেট করা ঠিক নয়। কাজ পাইয়ে দেওয়ার নাম করে সুযোগ নেওয়া নতুন কোনো ঘটনা নয়। তাহলে কেন শুধু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে টার্গেট করা হচ্ছে?’




এদিকে বলিউডে ‘কাস্টিং কাউচ’ নিয়ে বিবিসি ওয়ার্ল্ড নিউজ একটি তথ্যচিত্র নির্মাণ করেছে। এখানে বলিউড তারকা রাধিকা আপতে আর মারাঠি ছবির তারকা উষা যাদব ভারতের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যৌন হেনস্তা নিয়ে কথা বলেছেন। তাঁদের আশঙ্কা, এই ইন্ডাস্ট্রিতে অনেকেই আছেন, যাঁরা যৌন হেনস্তার শিকার, অথচ ভয়ে সামনে আসছেন না।

তথ্যচিত্রে রাধিকা বলেছেন, ‘বলিউডের জাঁকজমকের পেছনে যে একটা গোপন অন্ধকার জগৎ আছে, তা হয়তো অনেকেরই জানা নেই। বলিউডে এমন অনেকেই আছেন, যাঁরা নিজেদের ঈশ্বরের আসনে বসিয়ে রেখেছেন। তাঁরা এতটাই প্রভাবশালী যে অনেকেই মনে করেন, তাঁদের ব্যাপারে মুখ খুললে হয়তো ভবিষ্যৎ নষ্ট হয়ে যাবে।’ আর উষা যাদব বলেন, ‘আমাকে যখন এ ধরনের খারাপ প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, প্রথমে তা বুঝতে পারিনি। আমি জিজ্ঞাসা করি টাকা লাগবে? কিন্তু আমার কাছে তো টাকা নেই। সে তখন বলে, “না না টাকা নয়।” তখন বুঝেছি, আমাকে তাঁর সঙ্গে বিছানায় শোয়ার প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে। সেটা কোনো প্রযোজক বা পরিচালকের সঙ্গে হতে পারে, আবার তাদের দুজনের সঙ্গেও হতে পারে।’

এবার ‘কাস্টিং কাউচ’ নিয়ে মুখ খুললেন বলিউডের বরেণ্য অভিনেতা ও বিজেপির সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহা। সরোজ খানের পাশে দাঁড়ান তিনি। এই নৃত্যশিল্পীর মন্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করেন। বললেন, ‘বিনোদন ও রাজনীতি, এই দুই জায়গায় কাজের বিনিময়ে যৌন সম্পর্ক গড়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। সরোজ খান কিছু ভুল বা মিথ্যা বলেননি। রাজনীতি, বিনোদন—দুই জায়গায়ই জীবনে উন্নতি করার বহু পুরোনো প্রথা কাস্টিং কাউচ। বিষয়টা এ রকম, আপনি আমাকে খুশি করুন, আমিও আপনাকে করব। সোজা কথায় দেওয়া-নেওয়া। খারাপ লাগার কী আছে!’

এদিকে বিবিসির তথ্যচিত্রে বলিউড তারকা অক্ষয় কুমার বলেন, ‘যেভাবে হলিউডে পুরুষ এবং নারী এই যৌন হেনস্তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে, তা সত্যিই প্রশংসার যোগ্য। এই দেশেও যদি এমনটা সম্ভব হতো, তাহলে খুব ভালো হতো।’

আর বলিউডসহ ভারতের চলচ্চিত্র অঙ্গনে সরোজ খানের মন্তব্য নিয়ে সমালোচনা অব্যাহত আছে এখনো। এবার সরোজ খানের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন শত্রুঘ্ন সিনহা। তাতে এই বিতর্ক নতুন মাত্রা পেয়েছে। এনডি টিভি, মিড ডে, জি নিউজ, টাইমস অব ইন্ডিয়া



Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.