ঘুমকাতুড়ে পাগল

আমি যে অফিসে কাজ করি

সেখানে রয়েছে কতগুলো ঘুমকাতুড়ে পাগল।

কিছুদিন আগ পর্যন্ত মেগা একটা প্রজেক্টে কাজ করেছি।

দিনের পর দিন, অফিসে নেই ছুটি

করতে হয়েছে ওভারটাইম।

সে প্রজেক্ট শেষে এখন সবার হাতেই মাইনর প্রজেক্ট।

এ প্রজেক্ট রয়েসয়ে করলেই হবে।

তাই তো সবাই রিলাক্স মুডে রয়েছে।

কেউ বা মোবাইলে ভিডিও দেখে, কেউ বা দেয় ন্যাপ (Nap),

যা ‘নাতিদীর্ঘ ঘুম’ নামেও পরিচিত।

এ ঘুম অফিসের সবাই-ই দেয়, এমনকি পিওনটাও দিচ্ছে

তারপরও এ ওর দোষ খুঁজে বেড়ায়

যেন কর্তৃপক্ষকে বলতে চায়,

‘স্যার, উনি তো অফিসে ঘুমায়।’

কর্তৃপক্ষ কোনো অ্যাকশন নেয় না, কারণ তারা জানে –

অভিযোগকারী নিজেও ‘ঘুমকাতুড়ে পাগল’।

আমাদের দেশটা হয়ে গেছে এরকম।

সবাই সবার ওপর দোষ চাপাচ্ছে, কেউ উদ্যোগী হয় না।

সরকার আর বিরোধী দল পরস্পরের ওপর দোষ চাপাতে ব্যস্ত।

‘ব্লেইম গেইম’ খেলছে তারা।

আর জণগণ খালি দেখছে তামাশা।

তামাশা দেখা ছাড়া আর কীইবা করার আছে তাদের?

প্রতিবাদ করতে গেলেই তো বলবে, ‘ওরা বিএনপি-জামাতের লোক’।

তাই বোধ হয় দেশের সবাই এখন ঘুম-ঘুম

‘স্লিপ’ মুডে আছে।

সবাই আশা করছে, ‘ভালোর জন্য, নতুনের জন্য’

পরিবর্তনটা অন্য জনে করে দেবে।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.