কুকুরের সঙ্গে যৌন সঙ্গম, দম্পতি গ্রেফতার

যুক্তরাষ্ট্রের আউরোয়ায় কুকুরের সাথে বিকৃত যৌন সম্পর্কের দায়ে এক দম্পতিকে গ্রেপ্তার করেছে স্থানীয় পুলিশ। বিকৃত যৌনতার কারনে বিচ্ছেদ হয় ওই দম্পতির।

মার্কিন সংবাদ মাধ্যম দি ডেনভার জানায়, জেনেটি এলিন সোলানে নামে এক নারীর সাথে বন্ধুত্ব হয় এক পুলিশ কর্মীর। ঘনিষ্ট বন্ধু হওয়ার পর এলিন তার জীবনের কিছু ভয়ানক তথ্য জানায় পুলিশ কর্মীকে।

যে তথ্য শোনে আতকে উঠেন ওই পুলিশ কর্মী। এলিন তাকে জানায়, সদ্য বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে তাদের। বিচ্ছেদের কারন স্বামীর বিকৃত যৌনাচার।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম দি ডেনভার পোস্ট জানায়, স্বামীর বিকৃত যৌন অভ্যাসের কারণে বাধ্য হয়েই সম্পর্ক শেষ করেছেন তিনি। কিন্তু বিকৃত যৌনতার চিত্র যে এতো ভয়ঙ্কর হতে পারে তা ওই পুলিশ কর্মীর ধারণারও বাইরে ছিল।

সোলানো ওই পুলিশকর্মীকে জানান, স্বামী ফ্রেডারিক নাকি জোর করেই তার পোষা কুকুরের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করত। সেখানেই শেষ নয়, বিকৃত কাম চরিতার্থ করতে সে কুকুরের সঙ্গে যৌনতায় স্ত্রীকেও বাধ্য করতো।




দিনের পর দিন চলত বাড়ির পোষা কুকুরের উপর এমন অমানবিক ও নিকৃষ্ট অত্যাচার। ইন্টারনেটে অশ্লীল ভিডিও দেখে তা পোষা কুকুরের উপর প্রয়োগ করতেন তারা। এভাবেই দীর্ঘদিন ধরে তাদের বিকৃত যৌনতা চলছিল।

কিন্তু ডিভোর্সের কারণ জানার পর চমকে যান পুলিশ কর্মী। সেখানেও বিকৃত মানসিকতার সন্ধান পান।

এলিন সোলানে জানান, তার মনে হচ্ছিলো স্বামী ফ্রেডারিক ব্লু মাঞ্জারেস স্ত্রীর চাইতেও কুকুরকেই বেশি ভালোবাসতেন। আর সেই ভাবনা থেকেই দু’জনের সম্পর্ক শীতল হতে হতে সংঘাতে রূপ নেয়। প্রায়ই দুজনের মধ্যে ঝগড়া হতো। এক পর্যায়ে সম্পর্ক ছেদের সিদ্ধান্ত নেন এলিন।

পুরো ব্যাপার জেনে সঙ্গে সঙ্গে ওই পুলিশ কর্মী তার মহলে যোগাযোগ করে বিষয়টি খুলে বলেন। ফলে পুলিশ স্ব:প্রণোদিত হয়েই তদন্তে নামে। আর তাতেই বের হয়ে আসে ঘটনার সত্যতা।

নিয়মিত বিকৃত যৌনতার শিকার হয়ে কুকুরটির অবস্থাও ছিল বেশ করুন। তাকে উদ্ধার করে তাই স্থানীয় পশু হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। বাড়ির কুকুরকে যৌন নিগ্রহের অভিযোগে ফ্রেডারিক তো বটেই.. এলিনকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রে পোষা প্রাণীর উপর কোনো ধরনের অত্যাচার প্রতিরোধে কড়া আইন রয়েছে। ফলে বিকৃত যৌনতার জন্য ওই সদ্য বিচ্ছেদ হওয়া দম্পতির যে কড়া শাস্তি ভাগ্যে রয়েছে তা বলাই বাহুল্য।



Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.