কিশোরীকে রাতে ধর্ষণ, দিনে মারধর

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে এক কিশোরীকে ধর্ষণের পর ধানক্ষেতে ফেলে রেখে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে নাজু মিয়া (২০) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে।

পরে খবর পেয়ে তাহিরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ধষর্ণের শিকার কিশোরীকে উদ্ধার করে।  সোমবার বিকালে এ ঘটনা ঘটেছে।

অভিযুক্ত নাজু মিয়া উপজেলার দক্ষিন বড়দল ইউনিয়নের নালের বন্ধ গ্রামের আলিনূর মিয়ার ছেলে।

পুলিশ জানায়, রবিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ধর্ষক নাজু ফোন করে কিশোরীকে ঘর থেকে বাইরে নিয়ে আসে। এক পর্যায়ে মুখে গামছা বেধে বাড়ির সামনে ধান ক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে যায়। পরে জ্ঞান ফিরলে ওই কিশোরী ধর্ষকের পিতা ও মাকে বিষয়টি জানালে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারধোর করে আবারো ধান ক্ষেতে ফেলে আসে।




সোমবার স্থানীয়রা পুলিশকে বিষয়টি জানালে তাহিরপুর থানার এসআই সাইফুর রহমান ও এসআই আমির ঘটনাস্থলে এসে ধানক্ষেত থেকে কাদা মাখা অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে।

ভিকটিমের মা বলেন, ধর্ষক নাজু সব সময় আমার মেয়েকে রাস্তা ঘাটে বিরক্ত করতো। তারা প্রভাবশালী হওয়ায় বিচার দিলেও বিচার করতো না। বরং আমার মেয়েকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিতো।

এ ব্যাপারে নাজুর পিতা আলিনুর মিয়া বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, তার ছেলের ঘরে ওই কিশোরী সোমবার সকালে ঢুকে পড়ে। পরে স্থানীয় ওয়ার্ড সদস্যের মাধ্যমে তাকে ফিরিয়ে দিতে চাইলে সে বাড়িতে না গিয়ে ধান ক্ষেতে শুয়ে থাকে। তাকে কোনো ধরনের নির্যাতন করা হয়নি।

তাহিরপুর থানর ওসি নন্দন কান্তি ধর এ বিষয়ে বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়। তবে এখনও কোনো মামলা দায়ের করা হয়নি। ধর্ষককে ধরতে অভিযান চলছে।



Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.